বৃহস্পতিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৮.৭৪°সে

উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে চুয়েট বন্ধ ঘোষণা, শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ

হায়দার আলী (স্টাফ রিপোর্টার) চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর শিক্ষার্থীদের দু-পক্ষের উত্তেজনাকর পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে চুয়েট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকাল ৫ টার মধ্যে ছাত্রদের এবং আগামীকাল বুধবার সকাল দশটার মধ্যে ছাত্রীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (চৌদ্দ জুন)চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)এর রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক উজ জামান চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান। “আজ মঙ্গলবার সকালে চুয়েট উপাচার্যের সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় চুয়েটের সকল ডিন, রেজিস্ট্রার, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, বিভাগীয় প্রধান, প্রভোস্ট ও ছাত্র কল্যাণ পরিচালকের সমন্বয়ে উপস্থিত সকলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ থেকে আগামী ৫ জুলাই পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক পর্যায়ের সকল একাডেমিক কার্যক্রম (পরীক্ষাসহ) এবং আবাসিক হল গুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও আগামী ৬ জুলাই থেকে চৌদ্দ জুলাই পর্যন্ত পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। তবে স্নাতকোত্তর পর্যায়ের চলমান সকল একাডেমিক কার্যক্রম যথারীতি অব্যাহত থাকবে।”

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, “গত শনিবার রাতে চুয়েট ছাত্র লীগের একটি গ্রুপের নেতাকর্মীরা চট্টগ্রাম শহরের একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান শেষ হতে দেরী হওয়ায় তারা চুয়েটের রাত ৯ টার বাস ৩০ মিনিট দেরিতে ছাড়তে বলেন। তবে বাসে থাকা অন্য একটি গ্রুপের নেতাকর্মীরা এ-র বিরোধিতা করে। মূলত এ বিরোধ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডায় লিপ্ত হয়ে মারামারি ও হামলার ঘটনা ঘটে। যা সে দিন ভোর ৪ টা পর্যন্ত চলতে থাকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসের সিটে বসাকে কেন্দ্র করে পুনরায় রবিবার ছাত্র লীগের দুই গ্রুপের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে ৩ জন ছাত্র আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে তৌহিদুর রহমান হলেন- যন্ত্র কৌশল বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র, নাইমুল আলম হলেন- তড়িৎ বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র ও সৌরভ আহম্মেদ হলেন- কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের ছাত্র।

বিবাদমান দুই পক্ষের একটি শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী ও সাবেক চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

চুয়েট ক্যাম্পাস চট্টগ্রাম শহর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। গত শনিবার রাত ৯ টায় চুয়েটে আসা-যাওয়া করতে শিক্ষার্থীদের জন্য ২ টি বাস ছিল। এ ঘটনার জের ধরে রাতে চুয়েটের শহীদ তারেক হুদা ও শেখ রাসেল হলে থাকা আ জ ম নাছিরের অনুসারীরা মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারীরা থাকা ড. কুদরাত এ খুদা হলের অন্তত দশটি তালা ভাঙে। এরপর মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারীরা গিয়ে শেখ রাসেল হলের একটি কক্ষের ভাঙেন।

এই ঘটনায় সোমবার আবারও ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হয়ে উঠে। এত উভয় পক্ষই দেশীয় রামদা, লাঠিসোঁটা ও ইট নিয়ে ক্যাম্পাসে মহড়া দেয়।

চট্টগ্রামের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মোঃ আনোয়ার হোসেন শামীম গণমাধ্যমে বলেন, “ক্যাম্পাসে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে চুয়েটে আমাদের পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।”

এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে উপচার্যের সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত সভার সিদ্ধান্ত মতে চুয়েট বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।”

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

জাতিসংঘ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক
গার্ডার দুর্ঘটনা: ক্রেনচালকসহ ৯ জন গ্রেফতার
শৈলকুপায় হাতুড়িপেটা করে হত্যা : ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
সাংবাদিককে হত্যাচেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ
বাংলাদেশে স্বর্ণের দাম কমলো
বাংলাদেশ সংকটের মধ্যে নেই: আইএমএফ

আরও খবর


close