সোমবার, ২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৪.৯৩°সে
সর্বশেষ:
সুনামগঞ্জে তিন চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত সিলেটে ভুয়া সাংবাদিকসহ গ্রেপ্তার ৭ করোনায় ক্রীড়াবিদ শাহ আবু জাকেরের মৃত্যু গণমানুষের শিল্পী চামড়ার নির্ধারিত মূল্য উপেক্ষিত দিল্লি-রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছে তৃণমূল সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদ বিবরণী জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশনা টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশের রেকর্ড গড়া জয় ‘কঠোরতম লকডাউনের’শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত কান্দাহার প্রদেশে তালেবানের হামলায় ঘরবাড়ি ছেড়েছে ২২ হাজার পরিবার প্রতি মাসে এক কোটি মানুষকে টিকা দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী আথিয়াকে ফলো না করার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী: সালমান

ফুটপাতের পাশে গাছ লাগান

ভিওএনজে ডেস্ক/ লিয়াকত হোসেন খোকন/সম্পাদকীয়:
খন শহরের বেশিরভাগ ফুটপাতের পাশেই কোনো গাছ দেখা যায় না। ফলে চলতে-ফিরতে পথচারীরা যে ছায়া পাবেন, সে ব্যবস্থা নেই। তাই ফুটপাতের পাশে গাছ লাগানোর কর্মসূচি নেওয়া হোক। বড় বড় নগরীতে গাছের দেখা মেলে না সহজে। তাছাড়া ফুটপাত কি হকারদের বসার আর চাঁদা তোলার জায়গা?

আজ পৃথিবীব্যাপী সমগ্র জীবকুলের অস্তিত্ব রক্ষার্থে বাতাসে কার্বন নিঃসরণ কমানোর বিষয়ে ভাবতে হচ্ছে মানুষকে। বিশ্বে দীর্ঘ ৪৭ বছরেরও বেশি সময় ধরে পরিবেশ দিবস পালিত হয়ে আসছে। কিন্তু এতে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাপনের মধ্যে ছোট ছোট অভ্যাসগুলো যদি আমরা পাল্টাতে পারি, তাহলে প্রকৃতিও আমাদের বন্ধু হয়ে উঠবে একদিন।

মনে রাখতে হবে, একটি গাছ ৩.৬৬ থেকে ১০ কিলোগ্রাম পর্যন্ত কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করে বাতাস থেকে। আর তা চলতে থাকে একশ’ বছর ধরে। গাছ থেকে কাগজ তৈরি করার ফলে প্রতি বছর অসংখ্য গাছ ধ্বংস করতে হয়। অথচ আমরা যদি একটু সজাগ হই, কাগজের ব্যবহার কমিয়ে ই-স্টেটমেন্ট ব্যবহারের দিকে নজর দিই, কিংবা ব্যবহৃত কাগজের ফাঁকা জায়গাকেও টুকটাক লেখালেখির কাজে লাগাই, শিক্ষার্থীরা অঙ্কের খসড়া লেখালেখির কাজে লাগায়, তাহলেও কাগজের ব্যবহার কমবে। কারও জন্মদিনে ফাঁকা জায়গা খুঁজে নিয়ে যদি দু-একটি করে গাছ লাগিয়ে সেগুলোর পরিচর্যায় মন দেওয়া যায়, তাহলে সেটা কাজের কাজ হবে।

আজ বাংলাদেশসহ পৃথিবীর নানা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণ পর্যাপ্ত বৃক্ষের অভাব তথা প্রকৃতিপীড়ন। সমগ্র জীবকুলে মানুষের মতো হিংস্র প্রজাতি দ্বিতীয় আছে বলে মনে হয় না। জ্ঞানপাপী, লোভী মানুষের জন্যই বিশ্বচরাচর আজ বিপন্নতার পথে। প্রয়োজন ও বিলাসিতার সীমাকে আমরা অগ্রাহ্য করে চলেছি। ঐতিহাসিক চিপকো আন্দোলন কি আমাদের কিছুই শেখায়নি? তেহরি বাঁধসহ কত বাঁধ তৈরির বিরোধিতা করেছিলেন সুন্দরলাল বহুগুনা, জীবনের প্রায় শেষদিন পর্যন্ত। জীবনের অন্তিম প্রান্তে এসে সেই মানুষরাই মানসিক যন্ত্রণায় আক্ষেপ করে বলেছেন, মানুষের সর্বগ্রাসী লোভ প্রকৃতিকে বাঁচতে দেবে না, নিজেরাও এভাবেই শেষ হয়ে যাবে?

এখনও সময় আছে- ঢাকা এবং অন্যান্য শহরে যত ফুটপাত আছে, সেগুলোর পাশে কিছুদূর অন্তর শাল, সেগুন, মেহগনিসহ মূল্যবান বৃক্ষ রোপণ করুন। গাছ কেটে বাড়িঘর নির্মাণ বন্ধ করার সময় এসেছে। ইংল্যান্ডে একটি গাছ কাটতে হলে সরকারের অনুমতির প্রয়োজন হয়। এ আইন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করার কথা ভাবুন।

লেখক : প্রাবন্ধিক, রূপনগর, ঢাকা

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

চামড়ার নির্ধারিত মূল্য উপেক্ষিত
ঈদে ঘরমুখো মানুষ: স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করুন
দেশের হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ সংকট
জেলা-উপজেলায় অক্সিজেন সংকট: সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা জরুরি
লকডাউন মেনে চলা জরুরি
পানি ও বিদু্তেৎর দাম বৃদ্ধি করা এটা গণবিরোধী সিদ্ধান্ত

আরও খবর


close