মঙ্গলবার, ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৪.৯১°সে
সর্বশেষ:
বাংলাদেশ আইএলও পরিচালনা পর্ষদের সদস্য পদে নির্বাচিত শারুন-নুসরাতের যোগাযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে বিমানের দুই কর্মী ও সহযাত্রীদের ধস্তাধস্তির ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহামায় জরুরি অবতরণ সোমালিয়ায় সেনা অভিযানে ৪৮ ঘণ্টায় অর্ধশতাধিক আল-শাবাব যোদ্ধা নিহত মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী আন্দোলনকারীরা রোহিঙ্গাদের সমর্থন ইসরাইলের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে মোদির অভিনন্দন সরকারি গাড়ি ও তেল খরচ করে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার উপজেলা চেয়ারম্যান চীনা বন্দরে বাংলাদেশসহ ১১টি দেশ থেকে হিমায়িত খাদ্য ‘আমদানি বন্ধ’ ১৯ জুন থেকে দেশে চীনের সিনোফার্ম ও বেলজিয়ামের টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইউরোর মতো বড় মঞ্চে ৫০ গজ দূর থেকে চোখ জুড়ানো গোল নাসির-অমিসহ পাঁচজন গ্রেপ্তার হওয়া আমি অনেক খুশি:পরীমনির নতুন প্রধানমন্ত্রী পেতে যাচ্ছে ইসরায়েল

প্রবাসী শ্রমিকদের সহায়তার দায়িত্ব নিন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস মহামারীতে প্রবাসের শ্রমবাজারে নানামুখী সংকট তৈরি হয়েছে। গত বছর মহামারীর শুরু থেকেই বিপুল সংখ্যক প্রবাসী শ্রমিক দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন। আবার এখন মধ্যপ্রাচ্যসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ফিরতে গিয়েও নানা জটিলতায় পড়ছেন শ্রমিকরা। সর্বশেষ ঘটনায় সৌদি আরবে ফিরতে গিয়ে সংকটে পড়েছেন কয়েক শত প্রবাসী শ্রমিক। দেশ রূপান্তরে শনিবার প্রকাশিত ‘সৌদির হঠাৎ ঘোষণায় বিপাকে শত শত যাত্রী’ শিরোনামের প্রতিবেদনে এই সংকটের কথা তুলে ধরা হয়। প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সাউদিয়া এয়ার আকস্মিক কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক ঘোষণা করায় বিপাকে পড়েছেন শত শত যাত্রী। গত দুদিনে সৌদি আরবে ফিরতে অপেক্ষমাণ অন্তত ৫০০ যাত্রী ফ্লাইট মিস করেছেন। অনেকের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে আসায় চরম বিপাকে পড়েছেন। আশঙ্কা করা হচ্ছে, ভিসার জটিলতার কারণে অনেকেই সৌদি আরব যেতে পারবেন না। হঠাৎ করেই গত বৃহস্পতিবার থেকে বাংলাদেশিদের প্রবেশে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সৌদি সরকার। পাশাপাশি কারও মাধ্যমে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রমাণ মিললে তাকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড ও পাঁচ লাখ সৌদি রিয়াল জরিমানা করারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটি।

সৌদি আরব কর্র্তৃপক্ষের আকস্মিক এ সিদ্ধান্তকে হঠকারী ও অমানবিক বলে উল্লেখ করেছেন যাত্রীরা। যাত্রীদের অভিযোগ, করোনা সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনে সৌদি কর্র্তৃপক্ষ কোয়ারেন্টাইন বাধ্যবাধকতার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেটা অন্তত এক সপ্তাহ সময় বেঁধে দিয়ে করলে এ সংকট হতো না। তাদের স্বেচ্ছাচারিতা ও হঠকারিতার শিকার হয়েছেন যাত্রীরা। প্রবাসীরা দুঃখ করে বলছেন, ‘একদিকে কোয়ারেন্টাইনের দ্বিগুণ খরচ, আরেক দিকে তথ্য বিভ্রাটের দরুন এই সংকট। এতে অনেক শ্রমিকই নিঃস্ব হয়ে পড়ছেন।’ একদিকে টিকিটের মেয়াদ শেষ হয়ে আসা, অন্যদিকে কোয়ারেন্টাইনের ব্যয়ের চাপে পড়ে তারা দিশেহারা। ঢাকা-সৌদিতে ওয়ানওয়ে টিকিটের সর্বনিম্ন ভাড়া যেখানে ৪৫ হাজার টাকার সঙ্গে যোগ হয়েছে আরও কমপক্ষে ৫৫ থেকে ৬৫ হাজার টাকার কোয়ারেন্টাইন ব্যয়। সাত দিনের কোয়ারেন্টাইন খরচেও তাদের দুঃখ ছিল না যদি সময় দেওয়া হতো। জানা গেছে, সৌদি আরবের নতুন বিধিনিষেধের মধ্যে রয়েছে যারা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেননি, তাদের সৌদি আরবে প্রবেশ করলে সাত দিন হোটেলে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। সে ক্ষেত্রে হোটেল খরচ নিজেকেই বহন করতে হবে। সৌদি আরবে যাওয়ার আগের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এলেই কেবল ঢাকা থেকে যাত্রীরা ফ্লাইটে উঠতে পারবেন। সৌদিতে পৌঁছানোর পর আরও দুইবার করোনা টেস্ট করাতে হবে। প্রথমবার টেস্ট করতে হবে সৌদি আরবে পৌঁছানোর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে। এরপর কোয়ারেন্টাইনের ষষ্ঠ দিনে আবারও করোনা টেস্ট করাতে হবে। করোনা টেস্ট করার খরচ যাত্রীকেই বহন করতে হবে। দুইবার টেস্টে নেগেটিভ রিপোর্ট এলে হোটেল কোয়ারেন্টাইন থেকে ৭ম দিনে নিজ বাসায় যাওয়া যাবে। এ ছাড়া যারা পূর্ণ ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তাদের ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রমাণপত্র সঙ্গে রাখতে হবে।

এমতাবস্থায় প্রশ্ন উঠেছে, সৌদি আরবে ফিরতে চাওয়া শ্রমিক ও অন্যদের প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার দেশটির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে এ ধরনের সংকট এড়ানোর জন্য কাজ করছে কি না। মহামারীর মধ্যে কাজ হারিয়ে দেশে ফিরে আসা শ্রমিকদের পুনর্বাসন এবং তাদের পুনরায় বিদেশের শ্রমবাজারে পাঠানোর বিষয়ে সরকারের তরফে যে ধরনের বিশেষ সহায়তা আশা করা হয়েছিল সেটা হয়নি বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। যে অভিবাসী ও প্রবাসী শ্রমিকরা বিদেশ থেকে টাকা পাঠিয়ে দেশের অর্থনীতিতে রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্সের প্রবাহ চালু রেখেছেন তাদের কল্যাণের জন্য সরকার কতটা ভূমিকা রাখছে? লক্ষ করা জরুরি, করোনা মহামারীর মধ্যেও প্রবাসী আয় অর্জনে বাংলাদেশ আরও এক ধাপ এগিয়ে এখন সারা বিশ্বে সপ্তম অবস্থানে পৌঁছে গেছে। ২০২০ সালে বাংলাদেশ ২২ বিলিয়ন (দুই হাজার ২০০ কোটি ডলার) প্রবাসী আয় অর্জন করেছে। বিশ্বব্যাংক প্রতিষ্ঠিত বহুপক্ষীয় ট্রাস্ট ফান্ড নোমাড গত ১২ মে এই তথ্য জানিয়েছে।

সরকারি পরিসংখ্যান অনুসারেই বাংলাদেশের প্রায় ১ কোটি ২৫ লাখ মানুষ সৌদি আরব ও মধ্যপ্রাচ্যসহ দেড়শতাধিক দেশের শ্রমবাজারে অভিবাসী শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। মনে রাখা দরকার দেশের জিডিপিতে প্রবাসী শ্রমিকদের অবদান ১২ শতাংশ। অন্যদিকে, প্রবাসী শ্রমিকের সংখ্যায় বাংলাদেশ ৬ষ্ঠ বৃহত্তম দেশ। এই করোনাকালেও সর্বোচ্চ পরিমাণ প্রবাসী আয় এসেছে বলে রাষ্ট্র অনেকটা দুশ্চিন্তামুক্ত হয়েছে। এই শ্রমিকদের অবদানেই এখন দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩৯ বিলিয়ন ডলারের বেশি। ফলে যে অভিবাসী শ্রমিকরা নিজের খরচে বিদেশে গিয়ে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার ভান্ডার পূর্ণ করছেন, যারা নিজেদের কাজ নিজেরা জোগাড় করে উপার্জিত অর্থ দেশে বিনিয়োগ করছেন, তাদের বিপদের দিনে সুরক্ষা দেওয়া এবং তাদের ভবিষ্যৎ কর্মসংস্থানে রাষ্ট্রের অবশ্যই দায়িত্ব রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

টিসিবি পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি
মহান স্বাধীনতা দিবস: দেশের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে
স্বাধীনতার ডাক
ছোট প্রকল্পে বড় ব্যয়, অযৌক্তিক প্রস্তাব খতিয়ে দেখা দরকার
শৈত্যপ্রবাহে স্থবির জনজীবন: দুর্ভোগ কমাতে পদক্ষেপ নিন
নিরাময় কেন্দ্রে পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যু, দায়ীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে

আরও খবর


close