বুধবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২১.৯৪°সে
সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনকে সমর্থন করায় মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাণ্ড ইরানকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র অনিবন্ধিত ও অবৈধ অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেবে সরকার ফ্লাইওভার থেকে পড়ে গেল বাস, নিহত ৫ আহত ৪০ বাবার চড়ে ছিটকে শিশুকন্যার মৃত্যু রাঙ্গামাটি মাসস উদ্যােগের নর্ববষ বরন ও মহা সাংগ্রাই জলকেলি অনুষ্ঠিত (ভিডিও) খুলনা গাইকুর হাত-পা বাঁধা, গলায় ফাঁস দেওয়া যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু কিশোরগঞ্জে ১৪ কিলোমিটার দৃষ্টিনন্দন বৈশাখী আলপনা! আইপিএলে ফর্মে থাকায় ছুটি বাড়ল মোস্তাফিজের রাঙ্গামাটি কাপ্তাই চিংম্রং এ মারমা সম্প্রদায়ের মহা সাংগ্রাঁই জল উৎসব কাপ্তাইয়ে শিশু নির্যাতন পরোয়ানা ভুক্ত আসামী আটক ইসরাইলে হামলা ইরানের, নীরবে পিছু হটছে যুক্তরাষ্ট্র!

শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন না ।। ফয়সালা হবে রাজপথে- মির্জা ফখরুল

খুলনা :‘শেখ হাসিনার অধীনে কোনো নির্বাচন হবে না। গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। আমরা শুধু আমাদের দলের পক্ষ থেকে নয়, ৩৬টি দলের পক্ষ থেকে জানিয়ে দিয়েছি, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাব না। নির্বাচনকালে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার না হলে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। কারণ ন্যাড়া বারবার বেলতলা যায় না। বহুত হয়েছে। এ মুহূর্তে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে।’

সোমবার খুলনার ডাকবাংলো মোড়ের বিভাগীয় তারুণ্যের সমাবেশে তিনি একথা বলেন। ‘তরুণ জাগলে বাঁচবে দেশ, ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ’-এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল সমাবেশের আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই নির্বাচন কমিশন অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে পারবে না। যারা নিজেদের অধিকার রক্ষা করতে পারে না। তাদের পক্ষে নির্বাচন করা সম্ভব নয়। আগে আইন ছিল নির্বাচনি এলাকায় কোনো গোলমাল হলে নির্বাচন কমিশন সেটা বন্ধ করতে পারবে। কিন্তু এখন সেই আইন বন্ধ করা হয়েছে। আর বেচারা হিরো আলম ঢাকায় নির্বাচনে করতে গিয়ে হামলার শিকার হলো। কিন্তু তাকে প্রটেকশন করতে পারল না নির্বাচন কমিশন। এদের (নির্বাচন কমিশন) অধীনে কোনো নির্বাচন সম্ভব না। নির্বাচন কমিশন বদলাতে হবে। যারা যোগ্য তাদেরকে আনতে হবে। নতুন একটি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে নতুন পার্লামেন্ট তৈরি করতে হবে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘পরিষ্কার কথা। একদফা এক দাবি-শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করতে হবে। যদি কথা না শোনা হয় তবে ফয়সালা হবে রাজপথে। রাজপথে ফয়সালা করে আমরা সত্যিকার অর্থে ’৭১ সালের যুদ্ধের চেতনায় আমাদের নেতা তারেক রহমানের ৩১ দফার ভিত্তিতে নতুন বাংলাদেশ তৈরি করব। সেই বাংলাদেশে তরুণদের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা থাকবে। তাদের উপরে ওঠার ব্যবস্থা থাকবে। তারা চাকরি-ব্যবসা করতে পারবে। মানুষ তার স্বাস্থ্যসেবা পাবে। শিক্ষা পাবে, নিরাপত্তা পাবে।’

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান বক্তা ছিলেন যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু। বিশেষ বক্তা ছিলেন স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এসএম জিলানী।

আরও বক্তব্য দেন বিএনপির খুলনা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, খুলনা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম মনা, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আমীর এজাজ খান প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মিল্টন, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজিব আহসান এবং ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল। মঞ্চে দুটি চেয়ার ফাঁকা রাখা হয়।

একটি চেয়ারে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এবং আরেকটিতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ছবি রাখা ছিল।

সমাবেশে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরও বলেন, ‘ঢাকায় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন হিরো আলম। তিনি কোনো রাজনৈতিক দলের লোক না। আওয়ামী লীগের কি দেউলিয়া অবস্থা হয়েছে যে, তাকেও সহ্য করতে পারছে না। তাকে মেরে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। একটা তামাশার চিত্র তৈরি হয়েছে। ’৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছিলেন তারা বেঁচে থাকলে বলতেন এমন দেশ তারা চান না।’

তরুণদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনারা আমাদের ভ্যানগার্ড। যে কোনো দেশের গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তরুণরাই এগিয়ে আসে। আমরা যে আন্দোলন শুরু করেছি তাতে ১৭ জন প্রাণ দিয়েছেন। ৬শ নেতাকর্মী গুম হয়েছেন। আমার বক্তব্যের আগে স্বামীহারা স্ত্রীর কথা, বাবাহারা সন্তানের কথা আপনাদের উদ্দেশে যারা বলেছেন আমি তাদের কথা মন দিয়ে শুনি। আমি আবেগে আপ্ল–ত হই। কি জবাব দেব। আমার জবাব দেওয়ার কিছু নেই।’

তিনি বলেন, ‘আ.লীগ সরকার বাকশাল কায়েম করেছিল। পত্রিকা বন্ধ করে মাত্র ৪টি পত্রিকা তাদের নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল। বর্তমানে শুধু পোশাক পালটানো হয়েছে। নিরপেক্ষ নির্বাচন না দিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চায় তারা। বর্তমানে রাষ্ট্রের কোনো নিরাপত্তা নেই। বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বেড়েই যাচ্ছে। ব্যাংকগুলো খালি হয়ে গেছে। বিদেশে যারা টাকা পাচার করেছে তারা যদি টাকা ফিরিয়ে আনে তবে আড়াই পার্সেন্ট ইনসেনটিভ দিচ্ছে। গাড়ি ব্যবহারকারীদের ট্যাক্সের বাইরে সারচার্জ দিতে হবে। সবই তাদের পকেটে যাচ্ছে। কৃষক বিদ্যুৎ পাচ্ছে না। খুলনাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে জুট মিলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। কৃষকরা ১০ টাকার দামের চাল খেতে পারছে না। হাসপাতালে সেবা নেই। বিএনপির নাম গন্ধ থাকলে সরকারি চাকরি হচ্ছে না। হলেও ২০/৩০ লাখ টাকা লাগছে। এই লুটেরাদের বিরুদ্ধে সংগঠিত হতে হবে। জোর করে ক্ষমতা থেকে নামাতে হবে।’

ডেঙ্গু প্রসঙ্গে ফখরুল বলেন, ‘পত্রিকার পাতা দেখলেই ডেঙ্গুর ভয়াবহতা চোখে পড়ছে। অথচ আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বিদেশে ঘুরতে গেছেন। আরেকজন প্রভাবশালী ঢাকার মেয়র তাপস। তিনিও তার পরিবার নিয়ে ইউরোপ ট্যুরে। মানুষকে বিপদে ফেলে তারা বিদেশে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।’

যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু বলেন, ‘শেখ হাসিনা ভোট চোর। এই সরকার অবৈধ। তাই ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই। র‌্যাব ও পুলিশ রেখে আওয়ামী লীগকে সামনে আসতে বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করে না। মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে দিতে চায়। আজ রাষ্ট্রে বৈষম্যের সৃষ্টি হয়েছে। মেধাবীদের চাকরি হচ্ছে না।

তিনি বলেন, এই সরকারের পতনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াসহ নেতাকর্মীদের মুক্ত করা হবে।’
ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ বলেন, ‘আজ এই তারুণ্যের সমাবেশের মাধ্যমে বর্তমান সরকারকে হলুদ কার্ড দেখানো হলো। ২২ জুলাই ঢাকার সমাবেশের মাধ্যমে শেখ পরিবারকে লাল কার্ড দেখানো হবে।’

এদিকে সমাবেশে আসার পথে তেমন কোনো সংঘাতের খবর পাওয়া যায়নি। তবে ডুমুরিয়া, দাকোপ ও রূপসা এলাকা থেকে সামাবেশে আসার সময় নেতা-কর্মীদের বাধা দেওয়া হয়। এছাড়া কয়েকটি স্থানে ট্রলার ও নৌকা কিছু সময়ের জন্য বন্ধ করে রাখা হয়।

অন্যদিকে দুপুর ১টার পর সমাবেশের মঞ্চের কাছে নগর বিএনপির সাবেক এক নেতার নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা এলে তাদের সেখানে বসতে না দেওয়ায় তারা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি ও মারামারি হয়। এতে ২ জন আহত হন।

বাগেরহাট প্রতিনিধি জানান, এদিন বাগেরহাট থেকে খুলনামুখী বাসসহ সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ ছিল। সকাল থেকে সড়কগুলোতে ব্যক্তিগত গাড়ি, প্রাইভেটকার, মাইক্রো, হাইএস, ইজিবাইক, মাহিন্দ্রাসহ অন্যান্য যানকে খুলনার দিকে যেতে বাধা দেওয়া হয়।

বাগেরহাট বাস মালিক সমিতি বলছে, মহাসড়কে ইজিবাইক, মাহেন্দ্রা (থ্রি-হুইলার), নসিমনসহ অযান্ত্রিক অবৈধ যান চলাচল বন্ধের দাবিতে তারা ধর্মঘট করছেন।

এদিকে হঠাৎ করেই বাগেরহাট থেকে খুলনাগামী বাসসহ সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ মানুষ।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

ফিলিস্তিনকে সমর্থন করায় মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাণ্ড
ইরানকে নিষেধাজ্ঞা দেবে যুক্তরাষ্ট্র
অনিবন্ধিত ও অবৈধ অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধে পদক্ষেপ নেবে সরকার
ফ্লাইওভার থেকে পড়ে গেল বাস, নিহত ৫ আহত ৪০
বাবার চড়ে ছিটকে শিশুকন্যার মৃত্যু
রাঙ্গামাটি মাসস উদ্যােগের নর্ববষ বরন ও মহা সাংগ্রাই জলকেলি অনুষ্ঠিত (ভিডিও)

আরও খবর