রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২২.৯৭°সে

কক্সবাজারের উখিয়ায় স্কুল ভবন নির্মাণ নিয়ে ইউএনওর গাড়ি ভাঙচুর

কক্সবাজারের উখিয়ায় স্কুল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও স্থানীয় কিছু লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) গাড়ি ভাঙচুর হয়েছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করেছে। সংঘর্ষে পুলিশ, শিক্ষকসহ উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। এ সময় দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রবিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর এলাকার পরিস্থিতি থমথম অবস্থায় রয়েছে।

সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে রয়েছেন- সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিলন কুমার বড়ুয়া, শিক্ষক বাবুল আবছার ও পুলিশের দুই সদস্য। অপরদিকে গ্রামবাসীদের মধ্যে রয়েছেন- দেলোয়ার (১৫), ফয়সাল (২০), হাসিনা বেগম (৩০), কবির আহমদ (৫০), মরিয়ম বেগম (৩৫) ও আবদু ছবি (১৬)।

সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক শামশুল আলম ভুলু জানিয়েছেন, বিদ্যালয়ের ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জন্য উখিয়া উপজেলা সহকারী (ভূমি) কমিশনার ও ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমদ ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয় আবু সৈয়দ ওরফে ফজলী, মো. কালু, নুরুল আলম নুরুসহ কিছু বিরোধিতাকারীদের সঙ্গে প্রথমে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। পরে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। এ সময় বিরোধিতাকারীরা ইউএনওর গাড়ি ভাঙচুর করে। পরে ঘটনাস্থলে উখিয়া থানার পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য গুলি ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে।

উখিয়ার থানার ওসি সঞ্জুর মোরশেদ জানিয়েছেন, স্কুল ভবনের ভিত্তিপ্রস্তরকে কেন্দ্র করে ওই এলাকার কিছু উচ্ছৃঙ্খল যুবক সরকারি কাজে বাধা দেয়ার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় তারা আকস্মিকভাবে পুলিশকে লক্ষ করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে।

তিনি আরও জানান, হামলার ঘটনার নেতৃত্বদানকারী ওই এলাকার আবু সৈয়দ ওরফে ফজলী (৪০) ও মো. কালুকে (৫৫) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে উখিয়া থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

আবুল কালাম নামে একজন জানিয়েছেন, সকালে ১০টার দিকে ভবন নির্মাণকাজ শুরু করতে ইঞ্জিনিয়ার ও ঠিকাদারসহ বিদ্যালয়ে গেলে মোহাম্মদ হোসাইনের নেতৃত্বে স্থানীয় কয়েকজন দুষ্কৃতকারী নির্মাণকাজে বাধাঁ প্রদান করে। খবর পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আমিমুল এহসান খান উপস্থিত হয়ে তাদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। এতেও পরিস্থিতি শান্ত না হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজাম উদ্দিন আহমেদ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে সন্ত্রাসীরা একযোগে হামলা চালিয়ে তাদের গাড়ি ভাঙচুর করে। পরে পুলিশ রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ভবন নির্মাণে বাঁধা প্রদানকারী মোহাম্মদ হোসাইন জানিয়েছেন, একটি মহল বিশাল অঙ্কের টাকা লুটপাট করার মিশন নিয়ে মাঠে ভবন নির্মাণের নামে যুদ্ধ শুরু করেছে। এ সময় খেলার মাঠে ভবন নির্মাণে বাঁধা দিলে এলাকাবাসীর মধ্যে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন বলে তিনি দাবি করেন।

জানতে চাইলে ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমদ জানিয়েছেন, উখিয়ার সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের কিছু বিরোধপূর্ণ জমির সমাধান কয়েক দিন আগেই হয়ে গেছে। তবে আজ বিদ্যালয়ের নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে গেলে কিছু উচ্ছৃঙ্খল যুবক হঠাৎ আমাদের ওপর হামলা করে। এ সময় তাদের ইট পাটকেলের আঘাতে আমার গাড়ির কাচ ভেঙে যায়। পরে তারা পুলিশের ওপরও হামলা করে। তরে পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ, জেলা পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলামসহ ঊর্ধ্বতন প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

ডিএনসিসি হাসপাতালে দুই রোগীর শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট
ঈদের নামাজ নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ১০
বাংলাদেশে কখন কোথায় হবে ঈদ জামাত
বাড়ছে লকডাউন, বিচারিক ক্ষমতা পাচ্ছে পুলিশ
স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদুল ফিতর উদযাপনে রাষ্ট্রপতির আহ্বান
সবার উপরে মানুষের জীবন: প্রধানমন্ত্রী

আরও খবর