শুক্রবার, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১.৬১°সে
সর্বশেষ:
করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে নাকাল যুক্তরাষ্ট্রে ফেসবুকের মাধ্যমে ১৪ বছর পর মিলল মা-মেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানদের ইউএনওর মতো নিরাপত্তা দেওয়ার নির্দেশ:হাইকোর্ট সিলেটে-৩ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান হাবিবের জাতীয় সংসদে প্রথম ভাষণ নীতিমালা চূড়ান্ত হলেই বাংলাদেশে আসছে বিদ্যুৎচালিত গাড়ি ভারত বাংলা‌দে‌শের ম‌ধ্যে অসাধারণ বন্ধু‌ত্বের সম্পর্ক মৃত্যুর ৫ বছর ‘ছাড়পত্র’ পেল দিতির সিনেমা চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বে এক দিনে মৃত্যু ১০ হাজার, শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন ১নং ওয়ার্ড রোটা: আবুল হোসেন ছোটনের উদ্যোগে ভ্যাকসিন সনদ বিতরণ বাংলাদেশ হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ সংস্থা নিউজার্সির নতুন কমিটি গঠন গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার দাবি সাংবাদিকদেরই -ডিইউজে’র বার্ষিক সভায় তথ্যমন্ত্রী ইভ্যালির সিইও রাসেল, চেয়ারম্যান শামীমা গ্রেপ্তার

যমুনার চরে মরিচ উৎপাদন, ৩০০ কোটি টাকার আশাবাদ

বগুড়ার যমুনার চরাঞ্চলের পাকা শুকনা মরিচ মানে সোনার ফসল। বগুড়ার মরিচের খ্যাতি দেশ জোড়া। বগুড়ার যমুনার চরাঞ্চলে এখন চলছে শুকনা মরিচ উত্তোলন, বাছাই উৎসবে মেতে উঠেছে শত শত নারী শ্রমিক। এখন রবি মৌসুমের মরিচ গাছ থেকে উঠানো প্রায় শেষ পর্যায়ে। সারিয়াকান্দিতে যমুরার চরের কৃষকের উঠান, বাড়ির চালা মরিচে লাল হয়ে গেছে।
মরিচ নিয়ে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। কোথাও চলছে মরিচ উঠানোর কাজ। আবার কোথাও উঠানো শেষ। এদিকে মরিচ সংগ্রহর জন্য চরগুলো চষে বেড়াচ্ছে ফুড প্রোসেসিং কোম্পানীর প্রতিনিধিরা।
বগুড়ায় এবার সাত হাজার ১৫০  হেক্টর জমিতে রবি মৌসুমে ৩০০ কোটি টাকার মরিচ উৎপাদন হবে বলে আশাবাদ করেছেন জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরেরর উপ-পরিচালক দুলাল হোসেন।
বন্যায় মানুষকে সর্বহারা করলেও সোনার ফসল মরিচেই তাদের ভাগ্য ফিরে যায়। এবার কয়েক দফা বন্যায় যমুনার চরাঞ্চলেরর মানুষের ক্ষতি হলেও বন্যায় পলি পড়া চরে আবার মরিচেই ভাগ্য ফিরে দিয়েছে। রবি মৌসুমে বগুড়ায় মরিচ (কাঁচা-পাকা) উৎপাদন ৩০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবার আশাবাদ কৃষি কর্মকর্তাদের। শুধু মাত্র সারিয়াকান্দির যমুনার চরগুলোতে দেড়শ কোটি টাকার উপরে শুকনা মরিচ কেনা-বেচা হবে বলে জানান জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচারক শাহাদুজ্জামান।
মরিচ সংগহের জন্য স্থায়ী আস্তানা গেঁড়েছে দেশের নামকরা ফুড প্রোসেসিং কোম্পানীগুলো। স্কায়ার, প্রান, বিডি ফুডসসহ অনেক কোম্পানী মরিচ কেনার জন্য চাষিদের ঘাড়ের উপর নিঃশ্বাস ফেলছে। এবার জেলায় সাত হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে রবি মরিচ চাষ হয়েছে। এ থেকে মরিচ উৎপাদন হবে ১৭ হাজার ১৬০ মেট্রিক টন।
মরিচ উৎপাদন এবার আবহাওয়া ছিল অনুকূলে। তাছাড়া বন্যার পর চরের জমিতে পলি পড়ায় খুব একটা সারের প্রয়োজন পড়ে না। সাধারনত চরে মরিচ উৎপাদনে সামান্য কিছু টিএসপি, ডিএপিসারের প্রয়োজন পড়ে। বিঘা প্রতি মরিচ উৎপাদনে খরচ পড়ে ১৩ থেকে ১৪ হাজার টাকা।  বিঘা প্রতি এবার মরিচের ফলন (শুকনা আকারের) হয়েছে আট থেকে নয় মণ। এখন প্রতি মণ মরিচ বিত্রিু হচ্ছে ছয় থেকে নয় হাজার টাকা পাইকারীতে। এতে কৃষকের বিঘা প্রতি লাভ থাকে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। মরিচের মান যত ভাল হবে ততোই লাভবান হবে কৃষক।
সারিয়াকান্দির বোহাইল ইউনিনের মরিচ চাষি মোসলেম জানান, এবার কয়েক দফা বন্যায় বেশ কিছু মরিচের গাছ নষ্ট হয়েছে। তবুও সরকারি সহায়তায় তারা ঘুরে দাঁড়িয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক শাহাদুজ্জামান জানান উৎপাদনের সিংহ ভাগ রবি মৌসুমের মরিচ বগুড়ার উৎপাদন হয়ে থাকে জেলার যমুনার  সারিয়াকান্দি উপজেলার চর থেকে।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

উপজেলা চেয়ারম্যানদের ইউএনওর মতো নিরাপত্তা দেওয়ার নির্দেশ:হাইকোর্ট
ভারত বাংলা‌দে‌শের ম‌ধ্যে অসাধারণ বন্ধু‌ত্বের সম্পর্ক
গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার দাবি সাংবাদিকদেরই -ডিইউজে’র বার্ষিক সভায় তথ্যমন্ত্রী
ইভ্যালির সিইও রাসেল, চেয়ারম্যান শামীমা গ্রেপ্তার
বাংলাদেশে সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
হাসপাতালে ভর্তি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী

আরও খবর


close