মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৭.৭৫°সে
সর্বশেষ:
সুপার এইট থেকে বিদায় নেওয়া বাংলাদেশ কত টাকা পাচ্ছে তিস্তা-গঙ্গার পানি বণ্টন হলে ভারতজুড়ে বড় আন্দোলন হবে : মমতা অধিবেশনের প্রথম দিন এমপি পদ থেকে ইস্তফা রাহুলের লালমনিরহাটে রাসেলস ভাইপার সন্দেহে মেরে ফেলা হলো দু’টি সাপ যুক্তরাজ্যের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ২৫ বাংলাদেশি প্রার্থী যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার জঙ্গল থেকে ১০ দিন পর পর্বতারোহী উদ্ধার খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে কাল বিএনপির সংবাদ সম্মেলন মারা গেছেন সেই ‘জল্লাদ’ শাহজাহান চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে বিআরটিএর অভিযানে ১৮ মামলা আলোচিত পাপিয়া কুমিল্লা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি লাভ একাদশে ভর্তিতে প্রথম পর্যায়ের ফল জানবেন যেভাবে যুক্তরাষ্ট্রকে ১০ উইকেটে হারিয়ে সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড

বাংলাদেশের সেনাবাহিনী ও নির্বাচন নিয়ে পিটার হাসের সতর্কবাণী

অনলাইন ডেস্ক:
বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, ততই দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের ওপর বাড়ছে আন্তর্জাতিক কূটনীতিক পর্যবেক্ষণ। এ পেক্ষাপটে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস বলেছেন যে, কোনো নির্দিষ্ট দলকে নয়, যুক্তরাষ্ট্র গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে সমর্থন করে। বৃহস্পতিবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকের পর তিনি এ কথা বলেন। ২০২২ সালের মার্চ মাস থেকে বাংলাদেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী পিটার হাস বলেন, ‘কোনো নির্দিষ্ট দলকে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন করে না। আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে সমর্থন করি, যেটি বাংলাদেশের জনগণকে আগামী সরকার নির্বাচনের সুযোগ করে দেবে।’
তিনি আরো বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নীতি অনুযায়ী আমরা অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সমর্থন করি। যেখানে কোনো পক্ষ থেকেই সহিংসতা হবে না। আমরা বিশ্বাস করি, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রত্যেকের ভূমিকা আছে। সরকার, গণমাধ্যম, রাজনৈতিক দল, বিচার বিভাগ, সুশীল সমাজ, নিরাপত্তা বাহিনী প্রত্যেককে তার অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখতে হবে।’
এর আগে, ৩০ জুলাই বাংলাদেশের ‘ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজে’ এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন হাস। বাংলাদেশের মার্কিন দূতাবাসের ওয়েবসাইটে ৩০ জুলাই প্রকাশিত সেই বক্তব্যে তিনি বলেছেন, ‘আমি আপনাদেরকে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির ধারণা দিতে চাই এবং কীভাবে সেটি থেকে কেবল আমাদের দুই পক্ষই নয়, বরং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল আরো বিস্তৃতভাবে উপকৃত হচ্ছে, আমরা দেখছি। এ দৃষ্টিভঙ্গিটি পাঁচটি সাধারণ লক্ষ্যের ওপর স্থির করা হয়েছে। আমি এসব লক্ষ্য এবং মার্কিন দূতাবাসে আমাদের দলটি কীভাবে সেগুলো উপলব্ধি করতে বাংলাদেশের সরকার ও জনগণের সাথে কাজ করছে, সে সম্পর্কে বলতে চাই।
আমাদের প্রথম লক্ষ্য হল একটি শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল বাংলাদেশকে সমর্থন করা। ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল যাতে স্বাধীন, উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ এবং নিরাপদ থাকে তা নিশ্চিত করতে আমরা একসঙ্গে কাজ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। প্রতিরক্ষা প্রস্তুতি জোরদার করতে এবং প্রতিটি স্তরে আমাদের সামরিক বাহিনীর মধ্যে অংশীদারিত্ব জোরদার করতে মার্কিন সামরিক বাহিনী নিয়মিতভাবে বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাথে কাজ করে আসছে। কৌশলগত পর্যায়ে, গত সেপ্টেম্বরে ঢাকাতে ৪৬তম বার্ষিক ইন্দো-প্যাসিফিক আর্মি ম্যানেজমেন্ট সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ। এই সমাবেশটি মার্কিন সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় পরিচালিত হয়েছিল এবং এটি ছিল এ অঞ্চলের বৃহত্তম স্থল বাহিনীর সম্মেলন। এটি ইন্দো-প্যাসিফিকের আঞ্চলিক স্থল বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতামত ও ধারণা বিনিময়ের জন্য একটি সংগঠন প্রদান করেছে।
পরিচালনাগতভাবে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী এবং বিশেষ অভিযান দলকে সহায়তার জন্য অসংখ্য নতুন সামরিক সক্ষমতা প্রদান করেছে। আমরা প্রাথমিকভাবে ‘ফরেন মিলিটারি ফাইন্যান্সিং’ বা এফএমএফ এবং ‘গোবাল পিসকিপিং অপারেশনস ইনিশিয়েটিভ’র মতো অনুদান কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশের সক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করি। মূল বিষয় হল এগুলো অনুদান, ঋণ নয়। কিছু সক্ষমতার নাম বলতে, আমরা মাইন-রেজিস্ট্যান্ট অ্যাম্বুশ প্রোটেক্টেড (এমআরএপি) সাঁজোয়া যান এবং রোবট বোমা সরবরাহ করেছি, যা বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের রক্ষা করতে সাহায্য করে, অতিরিক্ত সক্ষমতার মধ্যে রয়েছে সমুদ্র জয় এবং সমুদ্র আভিযানের মতো নৌবর এবং চারটি সি-১৩০বি বিমান।
যুক্তরাষ্ট্র সরকার প্রদত্ত অনুদান কর্মসূচির অধীনে বাংলাদেশ নৌবাহিনী এবং কোস্ট গার্ড বাংলাদেশের আঞ্চলিক পানিসীমা রক্ষায় সহায়তার জন্য তিনটি ভিন্ন ধরনের টহল বোট পেয়েছে। এই গত বছর আমরা এসডব্লুডিএস এবং প্যারা কমান্ডোদের কাছে ছোট মানববিহীন আকাশযন্ত্র সরবরাহ করেছি। যুক্তরাষ্ট্র এ বিশেষ অভিযান দলগুলোকে আধুনিক অস্ত্র, গোলাবারুদ, শরীর রক্ষা বর্ম, উন্নত বেতার ব্যবস্থা এবং প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে। আগামী বছরে আমরা অত্যন্ত সক্ষম ব্ল্যাকজ্যাক ইউএএস, ৩৫-ফুট সেফ প্যাট্রোল বোট্স এবং অতিরিক্ত জোডিয়াক রিজিড হাল বোট্স সরবরাহ করার আশা করছি। এসব ব্যবস্থা বাংলাদেশকে জাতিসংঘের কার্যক্রম পরিচালনা এবং এর সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সহায়তা করবে। যুক্তরাষ্ট্র উপযুক্ত সময় হলে, বিদেশী সামরিক বিক্রয়ের মাধ্যমে বাংলাদেশকে আরো উন্নত সক্ষমতা দিতে প্রস্তুত।
একটি পারস্পরিকভাবে সমাপ্ত সামরিক তথ্যচুক্তির সাধারণ নিরাপত্তা, যা একটি জিএসওএমআইএ নামে পরিচিত। এটা বাস্তবায়ন করা মৌলিক কাজ। এসব সরবরাহের পাশাপাশি এবং কৌশলগত স্তরে, মার্কিন বিশেষ অভিযান দলগুলো যৌথ অনুশীলনের টাইগার শার্ক পর্বগুলোর মাধ্যমে এসডব্লুএডিএস এবং প্যারা কমান্ডোদের প্রশিক্ষণ প্রদান অব্যাহত রাখে। আমাদের সেনাবাহিনী ‘টাইগার লাইটনিং’ এর মাধ্যমে, আমাদের বিমান বাহিনী ‘কোপ সাউথ’ এর মাধ্যমে এবং আমাদের নৌবাহিনী ‘কো-অপারেশন অ্যাফ্লোট রেডিনেস এবং ট্রেনিং সিএআরএটি অনুশীলন’ মাধ্যমে একসাথে অনুশীলন করে।
উপরন্তু, প্রাকৃতিক দুর্যোগে সাড়া দেয়ার জন্য আমাদের যৌথ ক্ষমতাকে উন্নত করতে আমাদের দেশগুলো দুর্যোগ প্রতিক্রিয়া অনুশীলন এবং বিনিময় বা ‘ডিআরইই’ নামে একটি সম্মিলিত অনুশীলনে একসাথে কাজ করে চলেছে। প্রকৃতপক্ষে, বাংলাদেশি এবং মার্কিন দল এ মাসের শুরুর দিকে গুয়াম দ্বীপে ২০২৩ ডিআরইই পরিচালনা করেছে। আমরা আরো উৎসাহিত যে, বাংলাদেশের ‘ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক’ সবার জন্য ভাগ করে নেওয়া সমৃদ্ধির জন্য একটি স্বাধীন, উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ, নিরাপদ এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি ঘোষণা করে।
আমাদের দ্বিতীয় লক্ষ্য হল, একটি বাংলাদেশ, যা গণতন্ত্র, স্বচ্ছতা, বহুত্ববাদ, সহনশীলতা, সুশাসন এবং মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। সহজ কথায়, গণতন্ত্র মানবাধিকার রক্ষায় এবং অন্যান্য শাসনব্যবস্থার তুলনায় সমৃদ্ধি সৃষ্টি ও টিকিয়ে রাখার জন্য আরো ভালো কাজ করে। এ লক্ষ্যটি বিশেষভাবে প্রাসঙ্গিক, কারণ আমরা আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের দিকে নজর রাখছি। আমি একটি বিষয় খুব স্পষ্ট করে বলতে চাই: যুক্তরাষ্ট্র কোনো বিশেষ রাজনৈতিক দলের পক্ষপাতিত্ব করে না।
অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করা সবার দায়িত্ব। নির্বাচন কমিশন থেকে শুরু করে সরকার, গণমাধ্যম থেকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, সুশীল সমাজ থেকে রাজনৈতিক দল, সবারই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তাদের কেউ যদি তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয় বা তাদের একজন যদি অন্যকে দায়িত্ব পালনে বাধা দেয়, তাহলে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অসম্ভব হয়ে পড়ে। সুশীল সমাজ এবং গণমাধ্যমকে হয়রানি ও ভয় দেখানোর ঘটনা, সেইসাথে এখানে বাংলাদেশে রাজনৈতিক সমাবেশ ও বিক্ষোভে সহিংস সংঘর্ষ আমাদের এই সত্যটি মনে করিয়ে দেয়। আইনের শাসনকে সম্মান করা এবং সহিংসতা, হয়রানি ও ভয় দেখানো থেকে বিরত থাকা সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন যে, বাংলাদেশের অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে সমর্থন করার জন্য আমরা মে মাসে একটি নতুন ভিসা নীতি ঘোষণা করেছি। এই ভিসা নিষেধাজ্ঞা নীতি যে কোনো ব্যক্তিকে প্রভাবিত করবে, যারা একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করবে।
আমাদের চতুর্থ লক্ষ্য হল, একটি টেকসই এবং ব্যাপকভাবে ভাগ করা সমৃদ্ধি এবং উন্নত শ্রম মান, যা বাংলাদেশের অর্থনীতিকে প্রসারিত ও বৈচিত্র্যময় করে এবং এটিকে বৃহত্তর আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বাণিজ্য ও সংযোগের জন্য উন্মুক্ত করে।
আমাদের পঞ্চম লক্ষ্য হল, আমরা আশা করি, রোহিঙ্গারা শিগগিরই নিরাপদ এবং মর্যাদাপূর্ণভাবে তাদের জন্মভূমিতে ফিরে যেতে সক্ষম হবে। আমরা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের ছয় বছরপূর্তি এবং বার্মা থেকে বাংলাদেশে তাদের আগমণের কাছাকাছি চলে আসছি। এই অবিশ্বাস্য আতিথেয়তার সমর্থনে, যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সাহায্য করার জন্য ২শ’ ১০ কোটি ডলারেরও বেশি মানবিক সহায়তা প্রদান করেছে।
যুক্তরাষ্ট্র এবং মার্কিন দূতাবাসে আমাদের দল বাংলাদেশের সাথে আমাদের ৫০ বছরেরও বেশি কূটনৈতিক সম্পর্ক উদযাপন করছে। তবে, যদিও আমাদের যৌথতার ইতিহাস নিয়ে আমাদের গর্ব করা উচিত, আমরা যা করতে পারি, তার চেয়ে আরো অনেক কিছু বাকি রয়ে গেছে। যদিও আগামী বছরগুলোতে চ্যালেঞ্জ থাকবে, বাংলাদেশ তার প্রথম অর্ধ শতাব্দীতে যে চ্যালেঞ্জগুলো অতিক্রম করেছে, আমি নিশ্চিত যে, আগামী অর্ধশতক এবং তার পরেও এটি তা অতিক্রম করতে থাকবে।

সূত্র : বিডিইউএসএম্বাসি.গভ/ইনকিলাব

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

সুপার এইট থেকে বিদায় নেওয়া বাংলাদেশ কত টাকা পাচ্ছে
তিস্তা-গঙ্গার পানি বণ্টন হলে ভারতজুড়ে বড় আন্দোলন হবে : মমতা
যুক্তরাজ্যের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ২৫ বাংলাদেশি প্রার্থী
যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার জঙ্গল থেকে ১০ দিন পর পর্বতারোহী উদ্ধার
খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে কাল বিএনপির সংবাদ সম্মেলন
মারা গেছেন সেই ‘জল্লাদ’ শাহজাহান

আরও খবর