রবিবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩.৩৮°সে
সর্বশেষ:
দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী হলুদ সাংবাদিকতা প্রতিরোধ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা শীর্ষক সুনামগঞ্জে গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে কর্মশালা আফগানিস্তানে তুমুল বর্ষণে নিহত আরো ২৯ নিউইয়র্কে আদালতের সামনে গায়ে আগুন দেওয়া ব্যক্তির মৃত্যু গরমে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসও বন্ধ ঘোষণা লাইভ সংবাদ পাঠের সময় গরমে অজ্ঞান সংবাদ পাঠিকা অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের ঘোষণা ৬ সন্তানের জন্ম, আনন্দে আত্মহারা মা-বাবা খুলনায় ১২ স্বর্ণের বারসহ যুবক আটক আদালতের ভেতরে ট্রাম্প, বাইরে শরীরে আগুন দিলেন কে এই ব্যক্তি? এবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ২৭ বস্তা টাকা ভোট দেওয়াটা আসলে একজন নাগরিকের কর্তব্য:রজনীকান্ত

দুই হাত না থাকলেও থেমে নেই অদম্য হাবিবুর

অনলাইন ডেস্ক:
জন্মগত ভাবেই দুটি হাত নেই হাবিবুরের। তবুও মনের প্রবল ইচ্ছে শক্তিতে ছোট বেলা থেকে পা দিয়ে লিখে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছে রাজবাড়ী জেলার হাবিবুর রহমান হাবিব।

শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা আটকে রাখতে পারেনি হাবিবের মেধাকে। তাই তো দুই হাত না থাকলেও পা দিয়ে লিখে এবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ডি’ ইউনিটে ‘ধর্মতত্ত্ব ও ইসলামী শিক্ষা অনুষদে’ ভর্তি পরীক্ষা দিতে এসেছেন সে। এর আগে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও ভর্তি পরীক্ষা দিয়েছেন সে।

হাবিব রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের হিমায়েতখালি গ্রামের ১নং ওয়ার্ডের দরিদ্র কৃষক আব্দুস সামাদের ছেলে। হাবিব পাংশার পুঁইজোর সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদরাসা থেকে পা দিয়ে লিখে আলিমও পাস করেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দরিদ্র কৃষক পরিবারের সন্তান হাবিবুর রহমান। চার ভাই বোনের মধ্যে ৩য় সে। বড় দুই বোনের বিয়ে হলেও পরিবারে রয়েছে ছোট বোন। সেও পড়াশুনা করে। জন্মগতভাবেই হাতবিহীন হাবিব। ছোট বেলায় বাবা মা, চাচা ও পরিবারের অন্যদের অনুপ্রেরণায় পা দিয়ে লেখার অভ্যাস করে। এরপর প্রাথমিক শিক্ষা জীবন শুরু করে। শিক্ষা জীবনের প্রথম স্তরেই সে কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের হিমায়েতখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে থেকে পা দিয়ে লিখে পিএসসিতে ৪.৬৭ পয়েন্ট পেয়ে পাশ করেন। এরপর শুরু হয় মাধ্যমিক শিক্ষা জীবনের দ্বিতীয় স্তর। এরপর পাংশা উপজেলার পুঁইজোর সিদ্দিকিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদরাসা থেকে জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৪.৬১ পয়েন্ট পেয়ে পাশ করেন। পরবর্তীতে আর পেছন ফিরে না তাকিয়ে একই মাদরাসা থেকে ২০১৯ সালে দাখিল পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ ৪.৬৩ পায়।

হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ছোট বেলা থেকেই আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী। দুই হাত নেই। পা দিয়ে লিখেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের গন্ডি পেরিয়ে আজ আমি আলিম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি।এ পর্যন্ত আসতে আমার অনেক প্রতিবন্ধকতায় পড়তে হয়েছে। নানান জন নানান কথা বলেছে। কিন্তু আমি তাতে কান দেইনি। নিজের আত্মবিশ্বাস ও ইচ্ছাশক্তির কারণে আজ আমি এতদূর এসেছি। এখন আমার স্বপ্ন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া এবং বড় আলেম হওয়া।

হাবিবুরের সাথে আশা তার এলাকার চাচা আজমল হোসেন বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা তাকে আটকে রাখতে পারেনি। তার অদম্য ইচ্ছাশক্তির কারণে সে আজ এতদূর পর্যন্ত এসেছে। আমি তার সর্বাঙ্গীণ মঙ্গল কামনা করি।

 

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী
হলুদ সাংবাদিকতা প্রতিরোধ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা শীর্ষক সুনামগঞ্জে গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে কর্মশালা
গরমে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাসও বন্ধ ঘোষণা
অনিবন্ধিত অনলাইন নিউজ পোর্টাল বন্ধের ঘোষণা
খুলনায় ১২ স্বর্ণের বারসহ যুবক আটক
এবার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ২৭ বস্তা টাকা

আরও খবর