শুক্রবার, ২৬শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৮.৫১°সে
সর্বশেষ:
প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে কমলা হ্যারিসকে ‘পছন্দ নয়’ ওবামার কমলা প্রেসিডেন্ট হলে দেশকে ধ্বংস করে দেবেন: ট্রাম্প কোটা আন্দোলন: সহিংসতায় নিহতদের পরিবারের দায়িত্ব নেবেন প্রধানমন্ত্রী জরুরি নন, কর্মী বাংলাদেশ ছাড়তে বলেছে যুক্তরাষ্ট্র হেলিকপ্টার থেকে গ্যাস-সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ হয়েছে, গুলি করা হয়নি: র‍্যাব বাংলাদেশে শিগগিরই শান্তি ফিরবে, আশা ভারতের কোটা আন্দোলন ঘিরে সহিংসতা:স্বজনদের কাছে হস্তান্তর ৮৫ লাশ, চিকিৎসাধীন ২১৮ স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি দেশব্যাপী ধ্বংসলীলা চালিয়েছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কোটা আন্দোলন ঘিরে সংঘর্ষ : রাজধানীতে বেওয়ারিশ ২১ লাশ দাফন শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পাশে দাঁড়ালেন কলকাতার নায়িকা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে বসার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে ব্রিফিং করবেন আইনমন্ত্রী ২৫ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসির সব পরীক্ষা স্থগিত

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদন।। তিন মাসে খেলাপি ঋণ বাড়ল ১১ হাজার কোটি টাকা

হামিদ বিশ্বাস

ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েই চলেছে। আগে দেওয়া ঋণ পরিশোধে বিশেষ ছাড় তুলে নেওয়ায় এবার বেড়েছে খেলাপি ঋণ। এ বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ৩ মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১০ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকা। তবে গত বছরের মার্চের তুলনায় এ বছরের মার্চে বেড়েছে ১৯ হাজার কোটি টাকা। মার্চ পর্যন্ত ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণের অঙ্ক বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৩১ হাজার ৬২০ কোটি টাকা। এর মধ্যে আদায় অনিশ্চিত বা মন্দ হিসাবে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে ১ লাখ ১৪ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে খেলাপি ঋণ সর্বোচ্চ ১ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকায় উঠেছিল।

বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর তথ্যের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তৈরি হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। রোববার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর প্রতিবেদনটি অনুমোদন করেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী-২০২৩ সালের মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৯৬ হাজার ৩৪৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হয়েছে এক লাখ ৩১ হাজার ৬২০ কোটি টাকা। যা বিতরণ করা ঋণের ৮ দশমিক ৮০ শতাংশ। অর্থাৎ উচ্চ খেলাপির ঝুঁকিতে রয়েছে দেশের ব্যাংক খাত। কারণ আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, খেলাপি ঋণের হার সর্বোচ্চ ৩ শতাংশ সহনীয় বলে ধরা হয়। এর বেশি হলেই তা ঝুঁকি। বাংলাদেশের খেলাপি ঋণ ঝুঁকির চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি। প্রকৃত হিসাবে খেলাপি ঋণ আরও বেশি হবে। কারণ, অবলোপন করা ঋণ, বিশেষ বিবেচনায় নবায়ন করাসহ আরও অনেক ঋণ রয়েছে যেগুলোর খেলাপির যোগ্য কিন্তু খেলাপি করা হচ্ছে না। প্রলেপ দিয়ে নিয়মিত রাখা হয়েছে। জানতে চাইলে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) সাবেক মহাপরিচালক ড. মইনুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, বর্তমানে খেলাপি ঋণ যা বলা হচ্ছে, তা সঠিক নয়। কারণ খেলাপি ঋণ কার্পেটের নিচে লুকিয়ে রাখা হয়েছে।

অর্থঋণ আদালতে বিপুল অঙ্কের ঋণ আটকে আছে। পুনঃতফসিলের আড়ালে আছে বড় অঙ্কের ঋণ। এছাড়া ঋণ পুনর্গঠন হয়েছে অনেক টাকা। সব মিলিয়ে প্রকৃত খেলাপি ঋণ ৪ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, যারা ঋণ নিয়ে পরিশোধ করছে না তাদের শাস্তি না নিয়ে নানাভাবে ছাড় দিয়েছে। এ কারণে খেলাপিরা ঋণ শোধ করছে না। বছরের পর বছর ঋণ পরিশোধ না করে পার পেয়ে যাচ্ছেন। এ অবস্থা চলতে থাকলে খেলাপি ঋণ বাড়তেই থাকবে। তাই যারা ঋণখেলাপি তাদের ছাড় দেওয়া ঠিক হবে না। ঋণ আদায় নিশ্চিত করতে হবে। যারা ঋণ পরিশোধ করবে না তাদের শাস্তি দিতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, একের পর এক ঋণখেলাপিদের ছাড় দেওয়া হয়েছে। সে কারণেই বর্তমানে খেলাপি ঋণ বেড়েই চলেছে। অনেক ভুল নীতি ছিল। এখন সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর যুগান্তরকে বলেন, খেলাপি বাড়বে। কারণ এটা বাস্তব। এখন সিদ্ধান্ত নিতে হবে এর থেকে বের হওয়ার পথ কি হবে। দেখতে হবে খেলাপির কী আছে। হয় সব বিক্রি করে, না হয় তাকে আরও কিছুদিন সময় দিয়ে এ অবস্থা থেকে বের হতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন বিশ্লেষণে দেখা যায়, বছরের প্রথম প্রান্তিকে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১০ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকা। ৩ মাস আগে ২০২২ সালের ডিসেম্বরের হিসাবে খেলাপি ঋণ ছিল ১ লাখ ২০ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকা। মার্চে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৩২ হাজার কোটি টাকায়। যা মোট ঋণের ৮ দশমিক ৮০ শতাংশ।

এর আগে ২০২২ সালের মার্চ শেষে ব্যাংকিং খাতে বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ১৩ লাখ ২৯ হাজার ৭৩৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ছিল এক লাখ ১৩ হাজার ৪৪০ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৮ দশমিক ৫৩ শতাংশ। সেই হিসাবে গত বছরের মার্চ প্রান্তিকের তুলনায় খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১৮ হাজার ১৮০ কোটি টাকা। দুই বছরের ব্যবধানে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৩৬ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা। ২০২১ সালের মার্চে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ৯৫ হাজার ৮৫ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালের মার্চ শেষে সরকারি মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে মোট ঋণের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৯১ হাজার ৬৫৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৫৭ হাজার ৯৫৮ কোটি টাকা বা ১৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ খেলাপি।

বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকে আলোচিত সময় ঋণ বিতরণের পরিমাণ ১১ লাখ ৫ হাজার ৬৮৯ কোটি টাকা। এ খাতে খেলাপি ঋণ ৬৫ হাজার ৮৮৮ কোটি টাকা বা ৫ দশমিক ৯৬ শতাংশ।

বিদেশি খাতের ব্যাংকগুলোর ঋণের পরিমাণ ৬২ হাজার ২৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৩ হাজার ৪১ কোটি টাকা বা ৪ দশমিক ৯০ শতাংশ খেলাপি এবং বিশেষায়িত খাতের ব্যাংকগুলোর ৩৬ হাজার ৯৭২ কোটি টাকা ঋণের মধ্যে ১২ দশমিক ৮০ শতাংশ বা ৪ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা খেলাপি ঋণ।

 

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

চন্দনাইশ উপজেলা চেয়ারম্যান জসিমকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ
৪৭ মাসের মধ্যে জুনে সর্বোচ্চ প্রবাসী আয়
ডিজেল কেরোসিনের দাম কমল
মতিউর ও পরিবারের ব্যাংক বিও হিসাব জব্দ
ঈদযাত্রা : ২১ জুনের ট্রেনের ফিরতি টিকিট মিলবে মঙ্গলবার
গার্মেন্ট শ্রমিকদের টিসিবির স্মার্ট কার্ড দেওয়ার সুপারিশ

আরও খবর